রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ০৮:১১ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
হাওর বাঁচাও আন্দোলন কেন্দ্রীয় কমিটির তৃতীয় সম্মেলনে হাওর বিষয়ক মন্ত্রনালয় গঠনের দাবি।দূর্নীতির বিষবৃক্ষে জাতি দিশেহারা, মুখ বন্ধের শেষ কথায় ?সুনামগঞ্জের কুস্তি খেলার ইতিহাস ও ঐতিহ্য গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচনহজ্জের অন্তরালে অবৈধ ভাবে একাদিক বিয়ে করছেন আয়েশাছাতক-দোয়ারাবাজারে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থদের পুষ্টি গুণ বিস্কুট বিতরণ।শান্তিগঞ্জে নতুন করে যাত্রা শুরু করলো রুরাল ডেভেলপমেন্ট হেল্থ সেন্টার এন্ড ডায়াগনস্টিক।বিশ্বম্ভরপুর থানায় ব্রেস্ট ফিডিং কর্ণার ও লাইব্রেরির উদ্ভোধন। ছাতকে শিক্ষানুরাগী নুর মোহাম্মদ ময়না মিয়া’র ইন্তেকাল।হাওড়ের নেই মাছ : ঋনের চাপে দিশেহারা জেলে।বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব উপাধ্যক্ষ ড.মোঃ আব্দুস শহীদ এমপি অনলাইন ফোরামের উপদেষ্টা মনোনীত হলেন উম্মে ফারজানা ডায়না।

কথা রাখলেন সিসিক মেয়র আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী -!!

হাওড় বার্তা ডেস্ক
  • সংবাদ প্রকাশ শনিবার, ১৫ জুন, ২০২৪
  • ৩৪ বার পড়া হয়েছে

বিশেষ প্রতিবেদক: গত ২৬ ও ২৭ এপ্রিল,২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ইউএসএ বাংলা আন্তর্জাতিক সাহিত্য ফোরামের সভাপতি যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী কবি শাহ মো. সফিনূরের উদ্যোগে সিলেটের কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের শহীদ সুলেমান হলে দুই দিন ব্যাপী আয়োজন করা হয় ইউএসএ বাংলা আন্তর্জাতিক সাহিত্য সম্মেলন। সাহিত্য সম্মেলনে বাংলাদেশ ও দেশের বাইরের প্রায় ২৫০ জন কবি সাহিত্যিক অংশ গ্রহণ করেন।

অনুষ্ঠানের প্রথম দিন ২৬ এপ্রিল প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী। প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি পরের দিন ২৭ এপ্রিল অনুষ্ঠানে আগত সবার লাঞ্চের খরচ বহন করবেন বলে ঘোষণা দেন।অনুষ্ঠান শেষে সিটি কর্পোরেশনে যোগাযোগ করা হলে লাঞ্চের খরচ তোলার জন্য সিটি কর্পোরেশনের এক কর্তা মেয়র বরাবর দরখাস্ত দেয়ার জন্য বলেন ইউএসএ বাংলা আন্তর্জাতিক সাহিত্য ফোরামের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান কবি শাহ মো. সফিনূরকে।

এ কথায় শাহ মো. সফিনুর জানান,আমি দয়া চেয়ে আবেদন কেন করব? আমিতো লাঞ্চ চাইনি।মেয়র নিজে লাঞ্চের খরচ দিতে বলেছেন।না দিলে না দিবেন। এই কিঞ্চিৎ খরচের জন্য আমি দরখাস্ত লেখব না।

মেয়রের সাথে আর দীর্ঘ দিন আলাপ হয়নি কবি শাহ মো. সফিনূরের। লাঞ্চের খরচ পাবার আশা মন থেকে প্রায় বাদ দিয়েছিলেন কবি শাহ মো. সফিনুর।

এরমধ্যে জানা গেল,মেয়রের সাথে ফোনালাপ হয়েছে কবি শাহ মো. সফিনুরের। মেয়র বিল দিতে দেরি হওয়ার জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছেন। এদিকে লাঞ্চের বিল পেয়ে আনন্দিত শাহ মো. সফিনুর।তিনি বলেন,মেয়র কথা রেখেছেন।ব্যস্ততার কারণে ভুলে গিয়েছিলেন এবং অনুষ্ঠান শেষে উনার সাথে সরাসরি আলাপের ব্যবস্থা না হওয়ায় পেতে দেরি হয়েছে। ইতোমধ্যে আমার একজন প্রতিনিধি লাঞ্চের খরচ বাবদ মেয়রের কাছ থেকে ৫০০০০ টাকা গ্রহণ করেছেন।আমরা মেয়রের প্রতি কৃতজ্ঞ।

সর্বশেষ সংবাদ পেতে চোখ রাখুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সব ধরনের সংবাদ
বাংলাদেশ চলচ্চিত্র ও প্রকাশনা অধিদপ্তর থেকে নিবন্ধনকৃত পত্রিকা। © All rights reserved © 2018-2024 Haworbarta.com
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Jp Host BD
jphostbd-2281