মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ১২:২৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম
রাজস্থলীতে আসন্ন ইউপি নির্বাচনে প্রার্থীদের সাথে কাপ্তাই ৫৬ ইস্ট জোনের মত বিনিময় সভাআসন্ন ইউপি নির্বাচনের চন্দ্রঘোনা থানা উদ্যােগের গ্রাম পুলিশের সাথে আইন শৃংখলার সভা অনুষ্ঠিতরাজস্থলী তে অন্ধ বৃদ্ধ অসহায় জলিল প্রধানমন্ত্রী উপহার দেয়া ঘর মিলেনি”আধুনিক ওয়ার্ড গড়তে চান মেম্বার পদপ্রার্থী জিয়া উদ্দিনচেয়ারম্যান প্রার্থী বক্করের বিরুদ্ধে বোমা ফাটালেন এক আ’লীগ নেত্রী রানীতালা-আগোলঝাড়া- জাতপুর রাস্তা বেহাল দশা মরণফাঁদে পরিণতখুরমা দক্ষিণ ইউপি নির্বাচনে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী আবু বকর সিদ্দীকের গণসংযোগসম্পর্ক ঐক্য এবং ভালোবাসার আরেক নাম হচ্ছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া!ছাতক পৌরসভার নামে টোল আদায় বন্ধে ট্রাক-কাভার্ডভ্যান মালিক ও শ্রমিক সমিতির সভা কক্সবাজার সিটি কলেজে অনার্স ১ম বর্ষের ওরিয়েন্টেশন সম্পন্ন

বিশ্বনাথে সমবায় কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অভিযোগের তদন্ত কাল

হাওড় বার্তা ডেস্ক রিপোর্ট
  • আপডেট মঙ্গলবার, ১২ অক্টোবর, ২০২১
  • ২১ বার পড়া হয়েছে

বিশ্বনাথ প্রতিনিধি : সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা কৃষ্ণা রাণী তালুকদারের বিরুদ্ধে আনীত বিভিন্ন অনিয়ম, ঘুষ, দূর্নীতি ও দায়িত্ব-কর্তব্য অবহেলার অভিযোগের তদন্ত ১৩ অক্টোবর বুধবার সকাল ১১টায় বিশ্বনাথ সমবায় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হবে।

অভিযোগের তদন্ত করবেন সুনামগঞ্জ জেলা সমবায় কর্মকর্তা মোঃ বশির আহমদ। গত ৭ অক্টোবর ১৪২৬নং স্মারকে সমবায় কর্মকর্তার কৃষ্ণা রাণী তালুকদারের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের তদন্ত করা হবে বলে নোটিশ প্রেরণ করা হয়েছে।

গত ১লা সেপেটম্বর সমবায় অধিদপ্তর, আগাঁরগাওয়ের নিবন্ধক ও মহাপরিচালক বরাবরে বিশ্বনাথ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মুহিবুর রহমান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য আবুল কালাম, দৌলতপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আরিফ সিতাব, ইউপি সদস্য আনোয়ার হোসেন, মাওলানা ছমির উদ্দিন ও নজির উদ্দিন একটি অভিযোগ দায়ের করেছিলেন।

অভিযোগ দায়েরের পর সমবায় কর্মকর্তা কৃষ্ণা রানী তালুকদার ও চাউলধনী হাওরের সাবলীজ গ্রহিতা সাইফুল ও তার বাহিনী বিভিন্ন স্থানে তদন্ত না হওয়ার জন্য তদবির শুরু করেন।

এতে প্রথমদিকে দুজনকে তদন্তকারী কর্মকর্তা নিয়োগ করা হলেও তারা অপারগতা প্রকাশ করেন। অবশেষে অভিযোগকারীগণ সমবায় মন্ত্রনালয়ের উর্ধ্বতন মহলে বিষয়টি অবহিত করলে শেষ পর্যন্ত সুনামগঞ্জ জেলা কর্মকর্তাকে তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয়।

এই্ কর্মকর্তাও তদন্ত থেকে বিরত থাকার জন্য নানা অজুহাত খোজছিলেন। শেষপর্যন্ত তিনি তদন্তের দায়িত্ব গ্রহণ করে নোটিশ প্রেরণ করেন।

চাউলধনী হাওরপারের মানুষের অভিযোগ সমবায় কর্মকর্তা কৃষ্ণা রানী তালুকদার সাইফুলের সাথে আতাত করে দশঘর অযোগ্য মৎস্যজীবি সমবায় সমিতিকে যোগ্য সমিতির সনদ দিয়ে চাউলধনী হাওর লীজ গ্রহনের সুবিধা করে দেয়ায় এবং বিভিন্ন অবৈধ কর্মকান্ডের কারনে এই সমিতি ৩০/৩৫হাজার কৃষকের শতকোটি টাকার ক্ষতি করে। হাওরে দুটি হত্যাকান্ডের মতো ঘটনা ঘটে। এমন অভিযোগ স্থানীয় কৃষকদের মুখে মুখে।

এই সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরিতে আরো সংবাদ
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Jp Host BD
jphostbd-2281