বুধবার, ০৫ অক্টোবর ২০২২, ০৯:২৯ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ

তালায় হাইব্রীড জাতের মুখিকচুর বাম্পার ফলনে লক্ষমাত্রা অতিক্রম করবে,,হাওড় বার্তা 

বি এম বাবলুর রহমান
  • আপডেট বৃহস্পতিবার, ৬ মে, ২০২১
  • ৩৩৭ বার পড়া হয়েছে

 সাতক্ষীরা জেলা প্রতিনিধি

তালায় চলতি বছরে হাইব্রীড জাতের মুখিকচুর বাম্পার ফলনে কৃষকের মুখে হাসির ঝিলিক,চলতি বছরে সকল রেকর্ড ভেঙে এবার লক্ষমাত্রা অতিক্রম করবে।

উৎপাদন খরচ কম ও ভালো মুনাফার কারণে তালায় দিন দিন বাড়ছে হাইব্রীড জাতের মুখিকচুর আবাদ। গত বছর তালা উপজেলায় ১০০ হেক্টরের কিছু বেশি জমিতে মুখিকচুর আবাদ হয়। এ বছর আবাদের পরিমাণ ১৮০ হেক্টর ছাড়িয়ে যাওয়ার আশা করা হচ্ছে। উপজেলার সদর, খলিলনগর, সরুলিয়া,তেতুলিয়া ও ইসলামকাটী চাষীরা এবার মুখিকচু চাষ করেছেন। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি আবাদ হচ্ছে তালা সদর ও খলিলনগর ইউনিয়নে তালা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, এ উপজেলায় ১৮০ হেক্টর জমিতে লাভজনক ফসল হিসেবে মুখিকচুর চাষ হয়েছে। এখন উপজেলার বিভিন্ন এলাকা জুড়ে মুখিকচু চাষীরা জমিতে পরিচর্যা করছেন।অন্যদিকে সদরের ইউনিয়ে বারুইহাটি,আগোলঝাড়া,ভায়ড়া,জাতপুর,ডাংগানলতা,আটারোই,এবং খলিলনগর ইউনিয়নে দক্ষিণনলতা,গংগারামপুর,হরিচন্দরকাটি,মহান্দী,তেতুলিয়া ইউনিয়নে তেতুলিয়া ও শুকদেবপুর গ্রামে প্রচুর পরিমাণে মুখিকচুর চাষ হয়েছে।

খলিলনগর ইউনিয়নের দক্ষিণনলতা গ্রামের কৃষক মোমিন গাজী জানান তিনি ৩ বিঘা জমিতে এবার মুখিকচুর চাষ করেছে এই পর্যন্ত ৬০হাজার টাকা খরচ হয়েছে, বাজার দর স্বাভাবিক থাকলে তিনলক্ষাধিক টাকা মতো বিক্রি হবে।
একই এলাকার লিয়াকাত আলী মোড়ল জানান আমি দুই বিঘা জমিতে মুখিকচুর চাষ করেছি আশাকরি এবার অনেক লাভ হবে।

তালা সদরের আগোলঝাড়া গ্রামের কৃষক মোঃ মোস্তফা শেখ জানান, আমি এবার চার বিঘা মুখিকচু চাষ করেছি। মুখিকচু উৎপাদনে লাভ বেশি, এবং ধান উৎপাদনের থেকে খরচও কম। বিঘাপ্রতি ৭০-৮০ মণ করে ফলন পাওয়া যায়।তিনি আরো জানান, গত বছর তালায় নতুন মুখিকচু বিক্রি হয়েছে ৮০ থেকে ১০০ টাকা কেজি দরে, পরে ৩০ ,২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। এক বিঘা জমি থেকে ৭০-৯০ হাজার টাকার মুখিকচু বিক্রি করা সম্ভব।

তালা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হাজিরা বেগম জানান, কৃষকরা মুখিকচু রোপণ করার পাঁচ-ছয় মাস পর বিক্রি করতে পারেন, এই ফসলের উৎপাদন খরচ খুব কম,পাশাপাশি রাসায়নিক সারের প্রয়োজন হয় খুব কম,গত বছরের তুলনায় এবার মুখিকচুর আবাদ বেড়েছে। এমনকি লক্ষ্যমাত্রাও ছাড়িয়ে যাবে এবার।

তালা কৃষি উপসহকারী কর্মকর্তা পরিতোষ কুমার বিশ্বাস জানান, তালা উপজেলায় গত বছর ১০০ হেক্টরের কিছু বেশি পরিমাণ জমিতে মুখিকচু চাষ হয়েছিল। এ বছর আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ১৮০ হেক্টর জমিতে। আশা করা হচ্ছে লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাবে, এলাকায় মুখিকচুর চাহিদা রয়েছে,
ঈদের পর চাষীরা মুখিকচু বাজারে তুলতে শুরু করবেন।তালা উপজেলায় কৃষকদের বিভিন্ন প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা আছে,আমরা সর্বসময় কৃষকদের সেবা দিয়ে যাবো।

সর্বশেষ সংবাদ পেতে আমাদের সাথেই থাকুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

সব ধরনের সংবাদ পেতে ক্লিক করুন।
দৈনিক হাওড় বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2019
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Jp Host BD
jphostbd-2281